২০১৪ তে ইতালি থেকে আমার norway যাওয়ার অভিজ্ঞতা

by mirkodeb on জুলাই ১৩, ২০১৮পোস্ট টি ৩,০৫১ বার পড়া হয়েছে in আপনিও লিখুন

norway-jawar-oviggota২০১৪ সালে আমি ইতালির  চরম অর্থনৈতিক খারাপ অবস্থার সময়ে , অন্য কোন দেশে যাওয়া যায় কিনা তা নিয়ে চিন্তা করে , GOOGLE মামার সাহায্য নিয়ে দেখলাম , Norway তে ইউরোপের মধ্যে বেকারত্তের হার সবচেয়ে কম , বেতন বেশি, নিরাপত্তা এবং আরো অন্যান্য কিছু বিষয়ে সর্বসেরা |

সুতরাং  নিজের ভাগ্য পরিক্ষার জন্য অনেক আশা নিয়ে July  মাসে এক সাপ্তাহের যাওয়া আসার টিকেট করে Norway এর পথে যাত্রা করলাম। a/r টিকিট করলাম এই চিন্তা করে যে , যদি এই এক সাপ্তাহের মধ্যে কোনো কাজের এবং বাসস্থানের ব্যবস্থা করতে না পারি তাহলে সস্তা কোনো Hostel এ থেকে এই এক সাপ্তাহের মধ্যে ইতালীতে ফেরত আসব। এই জন্য আমি Norway এর কিছু সস্তা Hostel, কিছু বাংলাদেশীর যারা সেখানে থাকে তাদের নাম্বার নিলাম।

যাহোক প্রথম দিন Norway এসে অন্যরকম এক অনুভূতি লাগলো। স্টেশনে এসেই প্রথম বাস টিকেট কিনলাম। এক আফ্রিকান দেখলাম Lyca SIM বিক্রি করছে , তাকে বলতেই এক সাথে তিন SIM দিয়ে দিল ফ্রী, শুধু top-up করতে হলো। এরপর কিছু সময় ঘুরাঘুরি করার পর ঐখানের এক বাঙ্গালী যিনি দীর্ঘ দিন ধরে ( প্রায় 35 বছর) Norway তে বসবাস করছেন এবং কিছু বাঙ্গালী সাংস্কৃতিক সংঘটন এর পরিচালক, তার নাম্বারে ফোন দিলাম।

বললাম যে কি পরিস্থিতি নিয়ে Norway এসেছি এবং জানিনা এখন কোথায় থাকবো। উনি আমাকে সাহায্যের আশ্বাস দিলেন। বলতে গেলে আমার অনেক ভাগ্য , উনার সাহায্য নিয়ে কিছুদিন উনার আন্ডারে থেকে, এরপর উনি তার এক পরিচিতো এক বাঙ্গালী বাসায় উঠিয়ে দিলেন। এখানে বলে রাখা ভালো Norway তে বাঙ্গালী কম বিধায়, এখানে বাসাভাড়া বা সিটভাড়া পাওয়া খুব কঠিন। এরপর আবার Norway হলো পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে ব্যায়বহুল জায়গার মধ্যে একটি৷ তাই বাসার মালিকরা একজনকে ভাড়া দিতে গেলে ৩ মাসের অগ্রিম চেয়ে বসে৷ এক মাসের সিট ভাড়া ঐ সময়ে 2500 বা 3000 নরওয়েজিয়ান cronar.  এই তুলনায় আমরা ইতালিতে অনেক ভালো আছি৷ যাই হোক আমি সৌভাগ্য বসতো এক হৃদয়বান এক বাঙ্গালী ভাইয়ের বাসায় উঠি৷ উনি আমার কাছ থেকে শুধু চলতি মাসের ভাড়া রাখেন৷ আমি যেদিন থেকে এসেছি ঐ দিনই Bio DATA তৈরী করে কাজ খুজতে শুরু করি৷ এবং আস্তে আস্তে Norway আসার কঠিন বাস্তবতা বুঝতে পারি। আমি প্রায় ১০ মাসের মতো Norway তে ছিলাম, আমার অভিজ্ঞতায় বলতে পারি, এখানে কোনো নরওয়েজিয়ান কম্পানী  বা রেস্টুরেন্ট আপনাকে কাজ দেবেনা৷ শুধু বিদেশী রেস্টুরেন্ট বা কম্পানী ( যেমন Thai / chinese/ Japanese) অনেক নীচের  পোস্টে  কঠিন কঠিন কাজের জন্য বিদেশী রাখে।

আমরা বাঙ্গালী হলো এই তালিকায় সবচেয়ে নীচে – এটা শুধু নরওয়েতে নয় , পৃথিবীর সব জায়গায় প্রযোজ্য। যেমন একজন বাঙ্গালী কে যদি Dishwasher এর জন্য দেওয়া হয় , তাহলে শ্রীলক্ষা বা নেপালের লোক ঐখানে waiter এর কাজ করবে।আপনাদের একটা কথা বলে রাখি, শুধু ইন্টারনেটের সাহায্য নিয়ে কোন দেশের কি অবস্থা তা বোঝা যায়না। যেমন নরওয়েতে  বেকারত্তের হার সবচেয়ে কম, এটা তাদের দেশের লোকের জন্য, যারা নতুন আসে (বৈধ অবস্থায়) তাদের অবস্থা সম্পূর্ণ বিপরীত।

যাহোক , নরওয়েতে আমাদের  মধ্যে  কিছু এশিয়ানরা ( বিশেষ করে ইন্ডিয়ান, পাকিস্তানী দীর্ঘদিন ধরে ঐ খানে থাকায় তাদের অনেক ব্যবসা বানিজ্য আছে। এ কারণে আমাদের দেশের লোক প্রথম এসে তাদের সাহায্য নেয়। আমি একটি পাকিস্তানী একটি কাবাব শপে কাজ নিলাম। এই কাবাব শপ বাংগালীর মধ্যে খুব পরিচিত। এর সুনাম হলো এতে সহজেই কাজ পাওয়া যায়। আর দূর্নাম হলো পাকিস্তানী মালিকরা খাটায় বেশী , বেতন দেয় সর্বনীম্ন। আমি কাজ খুঁজতে খুঁজতে ঐ কাবাব শপে ডুকে গেলাম। ঐ কাজে যে কি কষ্ট তা ভাষায় লেখে বুঝাতে পারবোনা।

তবে তাদের কাজের কন্টাক্ট দিয়ে bank account এবং d-number করে ফেল্লাম। এই d-number হলো temporary tax number. পরে পুলিশের কাছে  registration করলে  national ID number পাওয়া যায়। এই registration করা নিয়ে পুলিশের সাথে আমার সমস্যা বেঁধে গেলো , নিয়ম অনুযায়ী european union এর নাগরিক হলে আর কাজের কন্টাক্ট থাকলে আপনাকে তারা registration করতে বাধ্য।এটাই তাদের সরকারি website লেখা আছে। কিন্তু পাকিস্তানী দোকানে কাজ করায়, যেহেতু  পাকিস্তানিরা সন্দেহজনক অভিবাসী তাই তারা আমাকে পর পর তিনবার appointment  নেয়ার পরও refuse করলো , কারন হিসাবে pay wage কম বা তিন মাসের pay slip  অথবা bank statement দেখাতে বললো, যদিও কোন যায়গায় এসব লেখা নাই। এক্ষেত্রে তারা একেক জনের জন্যে তারা একেক আইন ব্যবহার করে। এনিয়ে  আমি তাদের বিরূব্দে চেলেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে ছিলাম৷ পরে জেনে ছিলাম, বিদেশীদের ক্ষেত্রে পুলিশরা আইন-কানুন মানে না। আমি Eu এর complain সেকশনে আমার registration নিয়ে অভিযোগ করেছিলাম , এবং অভিযোগের উত্তরও পেয়েছিলাম , কিন্তু তারা তা আমলেই নেয়নি। এর কারন অবশ্য  এর আগের যারা বাঙালীরা এসেছিল তারা অনেক দুর্নীতি করার কারণে পুলিশ এখন বাংলাদেশীদের বিশ্বাস করে না।

বাঙালিদের অনেক দুর্নীতির মধ্যে অভিযোগ ছিল অনেক বাঙালী cyprus থেকে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে ঐখানের অনেক মেয়েকে বিয়ে করে অথবা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অনেক মেয়েকে বিয়ে করে নরওয়েতে permit stay বের করা। প্রথমদিকে সরকার এই টাইপের বাঙালিদের permit দিলেও পরে বছর বছর এই ধরনের permit application প্রায় দ্বিগুণ হয়ে যাওয়ায় তারা এই permit state কঠিন করে দেয়।  যাই হোক প্রায় তিন-চারবার Appointment নিয়ে ট্রাই করার পর অবশেষে আমি registration করতে পারলাম এবং সাথে national insurance number পেলাম। এতকিছু করার পরেও সর্বমোট প্রায় 10/11 মাস থাকার পর ইতালিতে ফেরত আসলাম। আসলে আমার ঐখানের পরিবেশ পরিস্থিতি এবং মানুষের ব্যবহার ভালো না লাগায় আমার মন ঠিক ছিল না। আমি সর্বসাকুল্যে ওই কয় মাসে তিন ধরনের রেস্টুরেন্টে কাজ করেছি। প্রথমে pakistani কাবাব শপে সবচেয়ে বেশি দিন কাজ করি , যেখানে কাজ ছিল, কাবাব (Meat) মাংস কাটা, কাবাব তৈরী করা, ইত্যাদি। পরে এক indian রেস্টুরেন্টে ধোয়া মোছা এর কাজ প্রায় এক মাস করি। সর্বশেষে SriLankan এক রেস্টুরেন্টে কিচেনে কাজ করি। ঐকাজটিই আমার সবচেয়ে ভাল লেগেছিল যদিও বেতন সবচেয়ে কম ছিল। ঐখানে বাঙ্গালীরা এসে চা খেতো। বাংলাদেশী রেস্টুরেন্ট না থাকায় , বাঙালি খাবারের স্বাদের আশায় বাঙালি লোকরা আসতো।

যাই হোক বাঙ্গালী ভাই দের বলি, আপনারা যদি নরওয়ে যাওয়ার চিন্তা থাকে তাহলে বুঝেশুনে যাবেন৷ আমি একেবারে যেতে না বলছি না, তবে আপনি কি উদ্দেশ্যে যাচ্ছেন অথবা কি পরিস্থিতি নিয়ে যাচ্ছেন তা অনেকবার চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নিয়ে যাবেন।

নরওয়ে সম্পর্কে আরো কয়েকটি কথা না বললেই নয়| নরওয়েতে অনেকগুলা প্রবলেমের মধ্যে একটি প্রবলেম হল ড্রাগ নেওয়ার লোক যারা homeless , এদেরকে প্রায়ই বাসের মধ্যে বা পার্কের মধ্যে দেখা যায়। নরওয়েতে salvation army এবং blue cross নামক সংস্থা এদেরকে কাপড় এবং ফ্রি খাবার দিয়ে সাহায্য করে। সুতরাং নরওয়েতে যে সবাই বড়লোক বা সবাই ভালো আছে তা নয়৷

বন্ধুরা উপরের লিখাটি ছিল ইতালি প্রবাসী আমাদের এক পাঠক এর জীবনে ঘতে যাওয়া বাস্তব অভিজ্ঞতা, এরকম আপনিও চাইলে ইউরোপে আপনার সাথে ঘতে যাওয়া বিভিন্ন বিষয় সবার সাথে শেয়ার করতে চাইলে আমিওপারি টিম এর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

আর একটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা ইউরোপে বসবাস কারি প্রবাসী বৈধ এবং অবৈধ আমাদের সকলের জন্য অনেক প্রয়োজনীয় একটি ব্যাপার যা আপনাদের মাঝে আজকে শেয়ার করা হচ্ছে, আর সেটা হল- আমিওপারি টিম ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এর বিভিন্ন অর্গানাইজেশন ও সংগঠন এর সাথে মিলে ইউরোপে বসবাসরত প্রবাসীদের নানা ধরনের যেকোনো আপডেট দেওয়ার লক্ষে নতুন একটি ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেজ ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এর সাথে মিলে যৌথভাবে পরিচালনা করা হচ্ছে, যেখানে আপনারা সরাসরি ইতালি সহ ইউরোপের সরকারী ভাবে প্রকাশিত যেকোনো ধরনের নতুন আইন বা নতুন কিছু প্রস্তাবনার খসড়া বের হওয়ার সাথে সাথে এই পেজের মাধ্যমে জানতে পাড়বেন এবং ইউরোপের নতুন নতুন কাজের সন্ধান থেকে শুরু করে ইউরোপে সকল গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সম্পূর্ণ ফ্রীতে পাবেন যা সরাসরি ইতালিয়ান ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশের স্থানীয় নাগরিক দ্বারা পরিচালিত। আর তাই আপনারা সকেলেই আমাদের এই অফিসিয়াল পেজ এখানে ক্লিক করে পেজটি লাইক দিয়ে রাখতে পারেন। যা ইউরোপে আপনার চলার পথ অনেক সহজ করে দিবে।    

উল্লেখ্য আমিওপারিতে পূর্বে প্রকাশিত ইউরোপ ও ইতালি নিয়ে অনেক প্রয়োজনীয় কিছু লেখার লিঙ্ক এখানে তুলে ধরা হল যা আপনাদের কাজে আসতে পারে।

* ইতালিতে সল্প মূল্যে দাঁতের চিকিৎসা করাবেন কিভাবে? বিস্তারিত এখানে ক্লিক করে জেনে নিন।

* পর্তুগালে ২০১৮ সালে কিভাবে অবৈধরা বৈধ হবেন?সরকারের নতুন ঘোষণা। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিল করুন

* কিভাবে সহজে ইউরোপের সেঙ্গেন ভিসা করবেন? বিস্তারিত এখানে ক্লিক করে জেনে নিন।

* ইতালির ট্যুরিস্ট ভিসার আবেদন অনলাইনে (২০১৮ থেকে) বেড়ে গেলো ভিসা পাওয়ার সম্ভাবনা।বিস্তারিত এখানে ক্লিক করে জেনে নিন।

* ইতালির ট্যুরিস্ট ভিসায় পরিবার এসে কি কাগজ করতে পাড়বে? বিস্তারিত এখানে ক্লিক করে জেনে নিন।

* পোল্যান্ডে, পর্তুগালে, মাল্টায় ১০০% গ্যারান্টি সহকারে জব ভিসা ।। সেলারি ১২০০/১৪০০ ইউরো !! বিস্তারিত এখানে ক্লিক করে জেনে নিন।

* ২০১৮ নতুন নিয়মে দেশে ইতালি ফ্যামিলি ভিসার আবেদন প্রক্রিয়ার বিষয় গুলো জেনে নিন। এখানে ক্লিক করে।

* যেভাবে সনাক্ত করবেন জাল পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট। এখানে ক্লিক করে জেনে নিন। 

* সেঞ্জেন ভুক্ত ইউরোপের যেকোনো দেশের পাসপোর্ট,রেসিডেন্স কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স ইত্যাদি ডকুমেন্টস গুলো চিনে রাখুন। আজকের বিষয় Austria এখানে ক্লিক করুন।

*ঢাকাস্থ ইতালি দূতাবাসের হয়রানী থেকে বাঁচতে প্রবাসীরা দেশে গিয়ে কি কি করতে পারেন?সবাই পুড়ুন নিজে বাঁচুন অন্যকে বাঁচান। এখানে ক্লিক করে পড়ুন।

* ইতালিতে কিভাবে দ্রুত ট্যুরিস্ট ভিসার মাধ্যমে পরিবার নিয়ে আসবেন? কি কি লাগবে? এখানে ক্লিক করে বিস্তারিত জেনে নিন।

* ইতালির ট্যুরিস্ট ভিসা পাওয়ার কিছু চমৎকার তথ্য,কেন আমি ভিসা পাইনা? তার সমাধান? এখানে ক্লিক করে জেনে নিন।

*ইতালিতে ট্যুরিস্ট ভিসায় এসে ফেরত না গেলে কি হবে?পুলিশ ধরলে কি হবে?ট্যুরিস্ট ভিসা নিয়ে যত প্রশ্ন ও তার উত্তর। এখানে ক্লিক করে জেনে নিন।

* ডয়েচ ব্যাংকে ব্লক একাউন্ট খোলা, ডকুমেন্ট পাঠানোর নিয়মাবলী এবং এম্ব্যাসির সহযোগীতা। আপডেটঃ ২৭ আগস্ট, ২০১৬ (লিখাতি পড়তে এখানে ক্লিক করুন)

*ইতালিয়ান কাগজ ধারীরা কিভাবে ইংল্যান্ডের ট্যুরিস্ট ভিসার আবেদন করবেন? কি কি কাগজ পত্র লাগবে? জেনে নিন বিস্তারিত।

* ইতালিয়ান পাসপোর্ট দ্রুত পাবো কিভাবে?ও ইতালিয়ান নাগরিকত্ব পেতে সে সংক্রান্ত কিছু বিষয় না জানলেই নয়। এখানে ক্লিক করে বিস্তারিত জেনে নিতে পারেন।

*ইতালিয়ান পাসপোর্টের আবেদন করবো? কোন বিষয় গুলো অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে? এখানে ক্লিক করে বিস্তারিত জেনে নিন।

*ইউরোপের বা ইতালির পাসপোর্ট নেওয়ার সময় দ্বৈত নাগরিকত্ব রাখার সুবিধা অসুবিধা গুলো জেনে রাখুন?  বিস্তারিত এখানে। 

*ইতালিতে রোড এক্সিডেন্ট হলে কিভাবে ৩০ দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণ পাবো? জেনে নিন বিস্তারিত।এখানে ক্লিক করে বিস্তারিত জেনে নিন

*ইতালিতে নির্যাতিত নারীরা কিভাবে তাদের অধিকার,হক আদায় করবেন?কোথায় যাবেন?কি করবেন? পার্ট – ১ এখানে ক্লিক করে বিস্তারিত জেনে নিন।

* বন্ধ হল ইতালির স্টুডেন্ট ভিসায় আসার পথ। এখানে ক্লিক করে বিস্তারিত জেনে নিতে পারেন।

* ইউরোপে প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা অথবা এণ্ট্রি ব্যান কি? কি কি কারনে আপনাকে ব্যান করতে পারে? এখানে ক্লিক করে জেনে নিতে পারেন।

আমাদের সাথে যোগাযোগের বিস্তারিতঃ স্ক্যাইপ- amiopari টেলঃ +৩৯ ০৬২৪৪০৫২১৭ মোবাইল +৩৯ ৩৩৮১৪০৮৯১৭ (imo) মোবাইলঃ +৩৯ ৩২০০৪১২৫৪০ (imo)

মোবাইলঃ +৩৯ ৩৪২৭৯৭৩২৮০ (WIND)  মোবাইলঃ +৩৯ ৩২৭২০৭৮৯০৮

ইমেইলঃ  info@amiopari.com

ঠিকানাঃ Via Delle Albizzie-27, 00172 Rome (Centocelle), Italy.

আর যারা আপনাদের ফেসবুকে আমাদের সাইটের প্রতিটি লেখা পেতে চান তারা এখানে ক্লিক করে আমাদের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে গিয়ে লাইক দিয়ে রাখতে পারেন। তাহলে আমিওপারিতে প্রকাশিত প্রতিটি লেখা আপনার ফেসবুক নিউজ ফিডে পেয়ে যাবেন। ধন্যবাদ।

 

*****লেখাটি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুণ!*****

সম্পর্কিত আরো কিছু পোস্ট দেখতে পারেন...

এই লেখাটি লিখেছেন...

– সে এই পর্যন্ত 2 টি পোস্ট লিখেছেন এই সাইট এর জন্য আমিওপারি ডট কম.

knowledge is power

লেখকের সাথে যোগাযোগ করুন !

আপনার মন্তব্য লিখুন